৪ ভাদ্র ১৪২৬, মঙ্গলবার ২০ আগস্ট ২০১৯ , ৩:০৬ পূর্বাহ্ণ

আন্দোলনে সহিংসতায় কূটনীতিকদের অভিযোগের উত্তর দিতে পারেনি বিএনপি।

বিডিএসনিউজ২৪.কম

প্রকাশিত : ০৩:৩৩ পিএম, ৯ আগস্ট ২০১৮ বৃহস্পতিবার | আপডেট: ০৩:৩৬ পিএম, ৯ আগস্ট ২০১৮ বৃহস্পতিবার

আন্দোলনে সহিংসতায় কূটনীতিকদের অভিযোগের উত্তর দিতে পারেনি বিএনপি।

আন্দোলনে সহিংসতায় কূটনীতিকদের অভিযোগের উত্তর দিতে পারেনি বিএনপি।

গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার রাজনৈতিক কার্যালয়ে গত মঙ্গলবার বিদেশী কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন বিএনপির সিনিয়র নেতারা। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়াও বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দলের  স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মির্জা আব্বাস, ড. আবদুল মঈন খান, গয়েশ্বর চন্দ্র রায় প্রমুখ। কূটনীতিকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র, ভারত, কানাডা, জার্মানি, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন দেশের কূটনীতিকরা। এই বৈঠকে দেশের চলমান রাজনৈতিক পরিস্থতিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

ওই বৈঠকে উপস্থিত কূটনীতিকরা বিএনপি নেতাদের বলেন, তাদের কাছে বিভিন্ন ডকুমেন্ট আছে যা প্রমাণ করে এই সহিংসতার সঙ্গে বিএনপির সম্পৃক্ততা রয়েছে। এর উত্তর বিএনপি নেতারা কিছু বলেননি। কূটনীতিকরা সরাসরি বিএনপি ও বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীর সম্পৃক্ততার ছবি দেখান। প্রশ্ন করা হয়, সাধারণ শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে কেন তাদের অংশগ্রহন ! এছাড়াও আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীর ফোন রেকর্ড ফাঁসের কথাও উল্লেখ করা হয়। বিএনপি নেতারা বার বার প্রসঙ্গ এড়ীয়ে গেলেও কণ উউতর দিতে পারেনি।

এই বৈঠকে বিএনপি নেতারা কূটনীতিকদের জানান, অক্টোবর পর্যন্ত দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি, খালেদা জিয়ার মুক্তি ইত্যাদি বিষয় পর্যবেক্ষণ করার পর নির্বাচনের ব্যাপারে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবে তারা। তবে বৈঠকে মূল আলোচনা হয়েছে সাম্প্রতিক সময়ে বিভিন্ন আন্দোলনে সংঘটিত সহিংসতায় বিএনপির সম্পৃক্ততা নিয়ে। কূটনীতিকদের পক্ষ থেকে বৈঠকে প্রশ্ন করা হয়, এই যে বিভিন্ন আন্দোলনে সহিংসতা হচ্ছে এই সহিংসতার পেছনে বিএনপির কোনো হাত আছে কী না। বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর উত্তরে বলেন, এসবের পেছনে বিএনপির কোনো হাত নেই। তখন কূটনীতিকরা প্রশ্ন করেন, আপনারা এই আন্দোলনগুলো সমর্থন করেন কী না। বিএনপি নেতৃবৃন্দ জানান, তারা আন্দোলন সমর্থন করেন।

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোনলনটিই শেষ আন্দোলন নয়। নির্বাচনের আগে সরকারের বিরুদ্ধে আরো আন্দোলন হবে বলেও বৈঠকে কূটনীতিকদের বলেন বিএনপি নেতারা।