১০ চৈত্র ১৪২৫, সোমবার ২৫ মার্চ ২০১৯ , ৫:৪০ পূর্বাহ্ণ

তারেকের ফোন: নৈশভোজ করবে না ঐক্যফ্রন্ট।

বিডিএসনিউজ২৪.কম

প্রকাশিত : ১১:২৪ এএম, ১ নভেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার

তারেকের ফোন: নৈশভোজ করবে না ঐক্যফ্রন্ট।

তারেকের ফোন: নৈশভোজ করবে না ঐক্যফ্রন্ট।


বাংলার চিরায়ত নিয়ম, কেউ কারো বাসায় গেলে আপ্যায়ন করা হয় খাবার দিয়ে। আর শেখ হাসিনার মেহমানদারির প্রশংসা সর্বজনবিদিত। আজ সন্ধ্যায় গণভবনে ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের জন্য খাবার আয়োজন করেছিলেন ১৭ পদের খাবার দিয়ে। ঐক্যফ্রন্টের নেতা ড. জাফরুল্লাহও বলেছিলেন আমাদের জয় হয়েছে। চা খেতে চেয়েছিলাম প্রধানমন্ত্রী আন্তরিক আপ্যায়নের ব্যবস্থা করেছেন। কিন্তু গতরাতের একটি ফোনে সংলাপের সব আয়োজন ভেস্তে যাচ্ছে। দেশের মানুষ যে আশার আলো দেখতে পাচ্ছিলো তা ক্রমশই নিমজ্জিত হতে যাচ্ছে লন্ডন থেকে আসা একটি ফোন কলের কারণে।

আজ ড. কামালের নেতৃত্বে ঐক্যফ্রন্টের ১৬ সদস্যের প্রতিনিধি দল সংলাপে অংশ নিতে গণভবনে যাচ্ছে। সরকারের পক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ ও ১৪ দলের শরিকদের ২২ সদস্যের প্রতিনিধি দল এ সময় উপস্থিত থাকবে। ড. কামালের বিশেষ পছন্দের খাবার চিজ কেকসহ ১৭ ধরনের খাবার দিয়ে ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের আপ্যায়ন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এই খবর জাতীয় পত্রিকা ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মাধ্যমে ছড়িয়ে গেলে প্রধানমন্ত্রীর আথিতীয়তার প্রশংসা করে সর্ব মহল। অনেকে দিন পর সংলাপের রাজনীতিতে এমন আথিতীয়তা রাজনীতির জন্য সু-বার্তা।

কিন্তু সূত্রমতে ঐক্যফ্রন্টের গনভবনে সংলাপ ও নৈশভোজে অংশগ্রহন ভালো ভাবে নিচ্ছে না লন্ডনে অবস্থানরত বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। সূত্র আরো জানায়, গতকাল রাতে মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে ফোন কল করে গালাগাল করেন এবং রাতের খাবার খাওয়ার সিদ্ধান্তের জন্য অকথ্য ভাষায় তিরস্কার করেন। ওই সময় মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সাথে থাকা নেতা কর্মীরা জানায়, একটি ফোন কল আসে তারপরই অনেকটা বিব্রত দেখায় তাকে। সাথে সাথে মীর্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ড. কামাল হোসেনের সাথে মোবাইলে কথা বলেন কয়েক দফা এবং অনুরোধ করে নৈশভোজের ব্যাপারটা উপেক্ষা করার।

উল্লেখ্য, ড. কামাল হোসেনকে সংলাপের চিঠি পৌঁছে দিতে গিয়ে আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক ড. আব্দুস সোবহান গোলাপ তার পছন্দের খাবার সম্পর্কে জানতে চান। তবে, ড. কামাল চিজ কেক ছাড়া বিশেষ কিছু বলেননি। এর আগের দিন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে ফোন করে আব্দুস সোবহানকে ড. কামালের পছন্দের খাবারের কথা জেনে আসতে বলেন।