৫ কার্তিক ১৪২৬, রবিবার ২০ অক্টোবর ২০১৯ , ২:৪৪ অপরাহ্ণ

ধানের শীষ প্রতীকের বাইরে জামাত একটি ভোটও পাবে না : রিজভী

বিডিএসনিউজ২৪.কম

প্রকাশিত : ০৩:৪৬ পিএম, ১৯ জুলাই ২০১৮ বৃহস্পতিবার

ধানের শীষ প্রতীকের বাইরে জামাত একটি ভোটও পাবে না : রিজভী

ধানের শীষ প্রতীকের বাইরে জামাত একটি ভোটও পাবে না : রিজভী

বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের শরিকরা দেড় শতাধিক আসন চায়। তবে এতেও খুশি নন তারা। তাদের অভিযোগ, এ বিষয়ে  বিএনপির কাছ থেকে কোনো আশ্বাসই মিলছে না। শরিক দলের একাধিক নেতা এখন প্রকাশ্যেই করছে বিএনপির নামে বিরূপ মন্তব্য। বিএনপি নেতারাও জামাত ও অন্যান্য দলগুলো নিয়ে করছে বিরূপ মন্তব্য।

আগামী নির্বাচন নিয়ে কোনো কথাই বলছে না বিএনপি। তবুও কারাবন্দী জোটনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার দিকে তাকিয়ে তারা ২০ দল ছাড়ার কথাও ভাবছেন না। বিএনপি অবশ্য শরিকদের আশ্বস্ত করে বলছে, সময়মতো সবারই মূল্যায়ন হবে।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, বিএনপির কাছে জোটের প্রধান শরিক জামায়াতে ইসলামী চায় অন্তত ৫০টি আসন। জোটের লিবারেল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি এলডিপি ও খেলাফত মজলিশ চায় অন্তত ৩০টি করে আসন। এ ছাড়া জাতীয় পার্টি (কাজী জাফর) ১৬টি, বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি ১০টি, বিজেপি ৩টি, ওলামায়ে ইসলাম এবং লেবার পার্টি চায় ৬টি করে আসন, বাংলাদেশ ন্যাপ ৫টি, এনডিপি ২টি, জাগপা ও এনপিপি চায় ৪টি করে আসন, ডেমোক্র্যাটিক লীগ ও ন্যাপ চায় ২টি করে আসন এবং সাম্যবাদী দল চায় ১টি আসন।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন,  ‘আমাদের সামনে এখন প্রধান চ্যালেঞ্জ হচ্ছে জোট টিকিয়ে রাখা। সবার চাওয়া আকাশচুম্বী। ওদিকে ম্যাডামও জেলে। আসন বণ্টনের সময় এখন নয়।

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী জানান, জোটের দুই চারটি ছাড়া অধিকাংশ দলই নামসর্বস্ব ও প্যাডসর্বস্ব। এরমধ্যে নির্বাচন কমিশনের নিবন্ধন নেই অন্তত ১২টির। জোটের অন্যতম প্রধান শরিক জামায়াতের নিবন্ধনও বাতিল হয়েছে। ধানের শীষের প্রতীকের বাইরে নির্বাচন করে জামাত জিততে পারবে না। বিএনপির ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতারা যত ভোট পাবেন, জামাতের কোনো কোনো নেতা সেই ভোটও পাবেন না, এটাই বাস্তবতা।

জোটের শরিক দল কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) ইবরাহিম বীর প্রতীক বিডিএস নিউজকে বলেন, ‘বিএনপির কাছে শরিক দল হিসেকে আমরা চাই ১০টি আসন। তবে বড় শরিক দলের সঙ্গে আলাপ আলোচনা করে যা সিদ্ধান্ত হবে তাকেই সম্মান দেখাবে কল্যাণ পার্টি। তবে জামাত এবার মনে হয়
ছাড়দিবে না।

জামাত ইসলামীও কড়া ভাবেই জানিয়ে দিয়েছে , এবার দাবি না মানলে কোন আপোষ নয়।