৩০ অগ্রাহায়ণ ১৪২৫, শনিবার ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ , ৮:৪০ পূর্বাহ্ণ

মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার বেড়েছে

বিডিএসনিউজ২৪.কম

প্রকাশিত : ১১:৪৯ এএম, ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ মঙ্গলবার | আপডেট: ০৭:৩৮ পিএম, ২৫ জানুয়ারি ২০১৮ বৃহস্পতিবার

মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার বেড়েছে

মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার বেড়েছে

মন্ত্রিসভায় নেওয়া সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার (গত বছরের শেষ প্রান্তি অক্টোবর-ডিসেম্বর) আগের বছরের একই সময়ের চেয়ে ৮ দশমিক ৯৭ শতাংশ পয়েন্ট বেড়েছে। গতকাল সোমবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে ২০১৬ ও ২০১৭ সালের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মাসে মন্ত্রিসভার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হারের তুলনামূলক প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরে সচিবালয়ে এক ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) এনএম জিয়াউল আলম জানান, গত অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মাসে আটটি মন্ত্রিসভা বৈঠকে ৬৮টি সিদ্ধান্ত হয়। এর মধ্যে বাস্তবায়ন হয়েছে ৫৩টির, ১৫টি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নাধীন। সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের হার ৭৭ দশমিক ৯৪ শতাংশ। ২০১৬ সালের একই সময়ে ১০টি মন্ত্রিসভা বৈঠক হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ওই সময়ে সিদ্ধান্ত হয় ১১৬টি, যার মধ্যে বাস্তবায়িত হয়েছে ৮০টি। আর ৩৬টি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নাধীন ছিল। বাস্তবায়নের হার ছিল ৬৮ দশমিক ৯৭ শতাংশ।

সচিব জিয়াউল আলম জানান, গত অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মাসে মন্ত্রিসভা বৈঠকে আটটি চুক্তি বা সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) এবং একটি নীতি বা কর্মকৌশল অনুমোদিত হয়েছে। আর সংসদে পাস হয়েছে তিনটি আইন। ২০১৬ সালের অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর মাসে মন্ত্রিসভা বৈঠকে আটটি চুক্তি বা সমঝোতা স্মারক (এমওইউ) এবং পাঁচটি নীতি বা কর্মকৌশল অনুমোদিত হয়েছিল। ওই সময়ে সংসদে ১১টি আইন পাস হয়।

প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভার সদস্যদের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর শীতল পাটি উপহার

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এবং স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী জাহিদ মালেক শীতল পাটি মানবতার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য হিসাবে ইউনেস্কোর স্বীকৃতি লাভ করায় গতকাল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মন্ত্রিসভার সদস্যদের শীতল পাটি উপহার দিয়েছেন।

ইউনেস্কো সিলেটের শীতল পাটির ঐতিহ্যগত বুনন শিল্পকে স্বীকৃতি দিয়েছে এবং গত ডিসেম্বরে আইসিএইচ এর সেফগার্ডের জন্য আন্তঃ সরকারের ১২তম অধিবেশনে মানবতার অবাস্তব সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের ইউনেস্কোর প্রতিনিধির তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করে।

আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবসে ডাক টিকিট, স্মারক খাম

ও ডাটা কার্ড উন্মোচন প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস-২০১৮ উপলক্ষে ডাক টিকিট, স্মারক খাম ও ডাটা কার্ড উন্মোচন করেছেন। প্রধানমন্ত্রী গতকাল সকালে তার কার্যালয়ে মন্ত্রিপরিষদ সভায় ১০ টাকার ডাক টিকিট, ১০ টাকার স্মারক খাম ও ৫ টাকার ডাটা কার্ড উন্মোচন করেন। এ উপলক্ষে একটি বিশেষ সিলমোহর ব্যবহার করা হয়।

মধ্যম আয়ের দেশ হলে বিনিয়োগ বাড়বে

সূত্র জানায়, বৈঠকে অনানুষ্ঠানিক আলোচনায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়াটা হবে সরকারের অনেক বড় অর্জন। বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হলে বিদেশিরা বিনিয়োগে আগ্রহী হবে এবং তাতে বৈদেশিক বিনিয়োগ বাড়বে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

সরকারের ঊর্ধ্বতন পর্যায় বলছে, ২০২১ সালে বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হবে। চলতি বছরের মার্চে এ বিষয়টি চূড়ান্ত হবে। এর জন্য তিনটি সূচকই এরমধ্যে অর্জন করেছে বাংলাদেশ। মন্ত্রিসভার বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। এ সময় দেশ মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হলে রফতানি কমে যাবে বলে গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন নিয়েও আলোচনা হয়।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ আজ মধ্যম আয়ের দেশ হলে অনেক রাষ্ট্রই বিনিয়োগ করতে আসবে। বিনিয়োগে তারা আগ্রহী হবে। আমরা নিজের টাকায় পদ্মাসেতু করছি, আমাদের সক্ষমতার কারণে এখন বিশ্ব ব্যাংক ও এডিবি আরো বেশি ঋণ দিতে চায়। ১৮ হাজার কোটি টাকার বিনিয়োগ আসতে পারে। আমরা অর্থনৈতিকভাবে সচ্ছল, এটা মনে করে অনেকেই বিনিয়োগ করতে আসবে। বিনিয়োগ বাড়বে সঙ্গে সঙ্গে রফতানিও বাড়বে।